ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এরদোয়ানের বিরুদ্ধে ভোট পেতে তরুণদের মন জয়ের চেষ্টায় কেমাল

দুই দশক ধরে ক্ষমতায় থাকা এরদোয়ানকে দ্বিতীয় দফা নির্বাচনে পরাজিত করতে তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কেমাল কিলিচদারওলু এবার তরুণদের মন জয়ের চেষ্টা করছেন। তার ভাষ্য, এরদোয়ান তরুণদের জীবনকে উপভোগ করতে দিচ্ছেন না। তরুণদের উচিত এরদোয়ানকে ভোট না দেওয়া।

তুরস্কের জাতীয় নির্বাচনের নিয়ম অনুযায়ী, প্রেসিডেন্ট হতে হলে কোনো প্রার্থীকে ৫০ শতাংশ ভোট পেতে হবে। কিন্তু দুই প্রধান প্রার্থী রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান ও কেমাল কিলিচদারওলু এই ভোট পেতে ব্যর্থ হয়েছেন। এরদোয়ান পেয়েছেন ৪৯ দশমিক ৫ শতাংশ, কেমাল পেয়েছেন ৪৪ দশমিক ৯ শতাংশ। আর জাতীয়তাবাদী রাজনীতিক সিনান পেয়েছেন ৫ দশমিক ২ শতাংশ ভোট। এর ফলে আগামী ২৮ মে দ্বিতীয় দফায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হবে।

মঙ্গলবার সমর্থকদের উদ্দেশে কেমাল বলেছেন,‘ব্যালট বাক্স থেকে পরিবর্তনের বার্তা উঠে এসেছে। যারা এই দেশে পরিবর্তন চায় তাদের সংখ্যা যারা এটা চায় না তাদের চেয়ে বেশি।’

তরুণ ভোটারদের কাছে জীবনযাত্রার ব্যয় সংকটের উল্লেখ করে ক্ষমতার পালাবদলে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন কেমাল। তার দাবি, তুরস্কে সুদের হার কমানোর জন্য এরদোয়ানের জেদ, লিরার দরপতন এবং ক্রমবর্ধমান মুদ্রাস্ফীতির কারণে সংকট অনেক বেশি বেড়েছে।

তিনি বলেন, ‘আপনাদের কাছে কোনো কিছুর জন্য পর্যাপ্ত অর্থ নেই। যখন আপনাদের চিন্তামুক্ত হওয়া উচিত, তখন আপনাদের জীবনের আনন্দ কেড়ে নেওয়া হয়েছে। আপনি আর আপনার যৌবন ফিরে পাবেন না। এই অন্ধকার সুড়ঙ্গ থেকে বেরিয়ে আসার জন্য আমাদের কাছে ১২ দিন আছে…।’