ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

স্কুল ছাত্রকে গুলি করে হত্যা করলো ছাত্রলীগ সভাপতি

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটিতে সভাপতির পদ পেয়েই বেপরােয়া থেকে আরাে বেপরােয়া হয়ে উঠেছে ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম মিসবাহ। মানছে না স্থানীয় আওয়ামী লীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদেরও। সংগঠনের নিয়ম কানুনের কোন তোয়াক্কা না করে নিজের প্রভাব বিস্তার করে হত্যা সহ নানান অনিয়ম করে বেড়াচ্ছেন।

গত ২৭ মে বুধবার পাঠাগারে জুয়া খেলার প্রতিবাদ করায় আইয়ুব আলী নামের ১৫ বছরের এক স্কুল ছাত্রকে গুলি করে হত্যার অভিযােগ উঠে। নিহত পরিবারের অভিযােগ কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম মিসবাহ পিস্তল দিয়ে আইয়ুবের মাথায় গুলি করলে সে ঘটনাস্থলেই নিহত হোন ।

গত বুধবার বিকেলে কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের ইজারকান্দি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে । নিহত আইয়ুব আলী ইজারকান্দি এলাকার জালালউদ্দিনের ছেলে । সে কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়ন উচ্চবিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র এবং ইজারকান্দি আলাের সেতু নামে একটি পাঠাগার দেখাশােনার দায়িত্বে ছিলেন।

এর আগেও ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম মিসবাহ’র বিরুদ্ধে কলেজ ছাত্রকে কুপিয়ে হাতের কবজি দ্বিখন্ডিত করারও অভিযােগ রয়েছে ।

কলেজ ছাত্রকে কুপিয়ে হাতের কবজি দ্বিখন্ডিত করেছে।

জানা যায় , আড়াইহাজার উপজেলার কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের ইজারকান্দি এলাকায় আট বছর আগে খুন হন রব মিয়া । এ ঘটনায় মামলা করেন নিহত রব মিয়ার ছেলে মাঈনউদ্দিন। ওই মামলার এক আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ, এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সাদ্দাম মিসবাহ’র নেতৃত্বে ১৫-১৬ জনের ছাত্রলীগের একদল নেতাকর্মী বাদী মাঈনউদ্দিনের বাড়িতে হামলা চালিয়ে এলােপাথাড়ি কোপানাের সময় বাদীর ছােট ভাই কলেজ ছাত্র রনির মাথায় গুরুতর আঘাত ও বাম হাতের কবজি বিচ্ছিন্ন করে ফেলে।

ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম মিসবাহ’র সন্ত্রাসী মূলক কর্ম কান্ডে দলের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হওয়ায় বিভিন্ন অনিয়ম ও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারনে স্থানীয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী সহ কালাপাহাড়িয়া ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের দাবী সাদ্দাম মিসবাহকে দল থেকে বহিস্কার করে আইনের আওতায় এনে কঠোরভাবে সর্বোচ্ছ শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার।

ঘটনার বিষয়ে আড়াইহাজার থানা ওসিকে মুঠোফোনে না পেয়ে নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার জায়েদুল আলমকে ফোন দিলে তিনি বলেন, কালাপাহাড়িয়া এলাকায় দুই পক্ষের সংঘর্ষে আইয়ুব আলী নামে অষ্টম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্র গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনা স্থলে নিহত হয়। এখনো পর্যন্ত ঘটনা স্থলে পুলিশ মোতায়েন করা রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশের তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে। এ বিষয়ে একটি হত‍্যা মামলা দায়ের হয়েছে। ঘটনার মূল নায়ক সাদ্দাম মিসবাহসহ সবাইকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে এবং অস্ত্র উদ্ধারের চেষ্টাও রয়েছে। যতদ্রূত সম্ভম তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।