ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী, যোগাযোগের নতুন দিগন্ত উন্মোচন

পর্যটকদের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা ছিল ট্রেনে করে পর্যটন নগর কক্সবাজার গমন। অবশেষে সেই প্রত্যাশা বাস্তবে রূপ নিলো। প্রধানমন্ত্রী দোহাজারী-কক্সবাজার রেলপথ উদ্বোধন করেছেন। একইসঙ্গে তিনি উদ্বোধন করেছেন কক্সবাজারের ঝিলংজায় আইকনিক রেলস্টেশন। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ রেলওয়ে নেটওয়ার্কের ৪৮তম জেলা হিসেবে যুক্ত হলো কক্সবাজার।

শনিবার সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে ঢাকা থেকে আকাশপথে রওনা হয়ে ১০টা ৪৫ মিনিটে কক্সবাজার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঝিলংজায় আইকনিক রেল স্টেশনে আসেন।

পরে তিনি আয়োজিত অনুষ্ঠান থেকে চট্টগ্রামের দোহাজারী থেকে রামু হয়ে কক্সবাজার শহর পর্যন্ত নবনির্মিত ১০২ কিলোমিটার দীর্ঘ সিঙ্গেল লাইন ডুয়েল গেজ রেলপথ ও কক্সবাজার রেলস্টেশনের উদ্বোধন করেন।

অগ্রাধিকার প্রকল্পটি উদ্বোধনের মাধ্যমে ১৩ বছরের প্রচেষ্টা সফল হলো। এখন কক্সবাজার পর্যন্ত চালু হবে রেলপথ। এর ফলে রাজধানী ঢাকা ও বন্দশহর চট্টগ্রাম থেকে ট্রেনে চড়ে সমুদ্র সৈকতের শহর কক্সবাজারে যাওয়া যাবে।

কক্সবাজারের আইকনিক রেলস্টেশনে সুধী সমাবেশে অংশগ্রহণ এবং স্টেশনের উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন শেষে প্রধানমন্ত্রী ট্রেনে চড়ে রেললাইন পরিদর্শন করে রামু যাবেন। সেখান থেকে যাবেন মহেশখালী। নির্মাণাধীন ১২শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনক্ষমতা সম্পন্ন পাওয়ার প্ল্যান্টের প্রথম ইউনিটসহ, মাতারবাড়ি গভীর সমুদ্র বন্দরের চ্যানেল উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী।

বিকালে সমুদ্রের কোলঘেঁষা প্রত্যন্ত জনপদ মহেশখালীর মাতারবাড়িতে আওয়ামী লীগের জনসভায় ভাষণ দেবেন ক্ষমতাসীন দলটির সভাপতি শেখ হাসিনা।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী ২০২২ সালের ৭ ডিসেম্বর কক্সবাজার গিয়েছিলেন। সরকারপ্রধানের আন্তরিক প্রয়াসে সাড়ে ৩ লাখ কোটি টাকার ৯৮টি প্রকল্প বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে বদলে যাচ্ছে দেশের প্রধান পর্যটন আকর্ষন কক্সবাজার।