ঢাকা, শুক্রবার, ২৫শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১১ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

বসনিয়ার কসাই রাতকো ম্লাদিচের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বহাল

বসনিয়ার কসাই হিসেবে পরিচিত সাবেক সার্ব সামরিক কমান্ডার রাতকো ম্লাদিচের বিরুদ্ধে গণহত্যার অভিযোগে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় বহাল রেখেছেন জাতিসংঘের যুদ্ধাপরাধের বিচারকরা। মঙ্গলবার রাতকো ম্লাদিচের করা আপিল প্রত্যাখান করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় বহাল রাখেন তারা। এর আগে হেগের জাতিসংঘের ইন্টারন্যাশনাল রেসিডুয়াল মেকানিজম ফর ফৌজদারি ট্রাইব্যুনালস-এর নিম্ন আদালতে তাকে দোষী সাব্যস্ত করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় ঘোষণা করেন বিচারকরা। এ রায় ও সাজার বিরুদ্ধে জাতিসংঘের যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালে আপিল করেন রাতকো ম্লাদিচ। তবে জাতিসংঘের বিচারকরা তার আপিলকে পুরোপুরিভাবে খারিজ করে দিয়েছেন। রাতকো ম্লাদিচের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের এ রায়কে বিশ্বের বিভিন্ন মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থার প্রধান, বিশ্বনেতা ও অন্যরা স্বাগত জানিয়েছেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন আল জাজিরা।

৭৮ বছর বয়সী ম্লাদিচ বসনিয়ায় ১৯৯২-৯৫ যুদ্ধের সময় বসনিয়ার সার্ব বাহিনীর নেতৃত্ব দেন।
তিনি বসনিয়ার রাজধানী সারজেভোর ৪৩ মাসের অবরোধের সময় বেসামরিক জনগণের ওপর সহিংসতা চালান এবং পূর্ব বসনিয়ার শহর স্রেব্রনিৎসায় ৮ হাজারের বেশি মুসলিম পুরুষ ও বালককে হত্যা করেন। ২০১৩ সালে তাকে গণহত্যা, মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে দোষী সাব্যস্ত করা হয়। এরই মধ্যে এই রায়টিকে স্বাগত জানিয়ে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান মিশেল ব্যাশেলেট এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনসহ বিশ্বের বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান মিশেল ব্যাশেলেট জাতিসংঘের যুদ্ধাপরাধ বিচারকদের রায়টির প্রশংসা করেন। এবং তিনি বলেন, ম্লাডিচের ক্ষেত্রে তার ভয়াবহ অপরাধ সংঘটিত হওয়ার প্রায় তিন দশক পরের এ রায়টি আন্তর্জাতিক বিচার ব্যবস্থার জবাবদিহিতাকে তুলে ধরেছে। এই রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে কর্মকর্তাদের ও সংবাদমাধ্যমকেও সংশোধনবাদী বর্ণনাকারী, বিভাজনমূলক বক্তব্য এবং ঘৃণা প্ররোচণা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। ব্যাচেলেট বলেন, ম্লাডিচের অপরাধগুলি ছিল রাজনৈতিক সুবিধা লাভের জন্য। আজকের রায়টি তার কৃতকর্মের ফল। এটি তার ব্যক্তিগত দায়বদ্ধতা, সমষ্টিগত শাস্তি বা কোনও নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের অপরাধী হিসাবে বিবেচ্য নয়।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, ম্লাডিচের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায়কে ঐতিহাসিক নিশ্চয়তা বলে প্রশংসা করেছেন। তিনি বলেন, এই ঐতিহাসিক রায় প্রমাণ করে যে যারাই এমন ভয়াবহ অপরাধ করবে, তাদের জবাবদিহি করা হবে। ভবিষ্যতে এটি বিশ্বের যে কোনও জায়গায় সংঘটিত নৃশংসতা রোধে আমাদের যৌথ সংকল্পকে আরও দৃঢ় করে। ম্লাদিচের নৃশংসতায় ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে বেঁচে থাকা পরিবারের প্রতিই আমার চিন্তাভাবনা। আমরা তাদের মৃত্যুর ট্র্যাজেডি কখনই মুছতে পারব না। তবে আমি আশা করি আজকের রায়, যারা শোক করছে তাদের সকলকে কিছুটা সান্ত¡না দেবে।

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরাঁর গণহত্যা প্রতিরোধ বিষয়ক বিশেষ উপদেষ্টা নদেরিতু বলেন, মঙ্গলবারের সিদ্ধান্তটি ক্ষতিগ্রস্ত ও বেঁচে থাকাদের ঐতিহাসিক নিশ্চয়তা প্রদান করে। এটি পশ্চিমা বলকানজুড়ে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বার্তা প্রেরণ করে। যেখানে আমরা গণহত্যাকে অস্বীকার এবং ম্লাদিচের মতো দোষী সাব্যস্ত অপরাধীদের গৌরব অর্জনকেই কেবল স্থির রাখি না বরং বাড়িয়ে তুলতে দেখি।

জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাশ, ম্লাডিচের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডকে বিজয় হিসাবে আখ্যায়িত করেছেন। তিনি টুইট করেছেন যে, হেগ ট্রাইব্যুনালের রায় দ্বারা তিনি মুক্তি পেয়েছেন। তিনি আশা করেছিলেন ম্লাদিচের আবেদন প্রত্যাখ্যান হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ও শোকাহতদের জন্য তা সান্ত¡নার কারণ হবে।

ইউরোপীয় কাউন্সিলের সভাপতি চার্লস মিশেল এই রায়টিকে গণহত্যার শিকার ব্যক্তিদের ন্যায়বিচার প্রদানের একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হিসাবে বর্ণনা করেছেন। মিশেল টুইট করেন, এটি আমাদের সকলকে বেদনাদায়ক অতীতকে পিছনে ফেলে ভবিষ্যতে এগিয়ে যেতে সহায়তা করবে।

দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় ইউরোপীয় বিষয়ে অভিজ্ঞ রাষ্ট্রবিজ্ঞানী জেসমিন মুজনোভিচ, ম্লাডিচের দোষ বহাল রাখার আদালতের সিদ্ধান্ত এবং পরবর্তীকালের অব্যাহত কারাবাসকে স্বাগত জানিয়েছেন। তবে বসনিয়ান যুদ্ধের প্রথম দিকে জাতিগত গণহত্যার আরো একটি গণনার বিরুদ্ধে ম্লাদিচের আইনজীবীদের আপিল প্রত্যাখ্যান করায় রায়কে তিনি সমালোচনা করেছেন। মুজনোভিচ টুইট করেছেন, আদালত আবারও স্বীকৃতি দিতে ব্যর্থ হয়েছে যে বসনিয়ার গণহত্যাটি স্রেব্রনিৎসার স্থানীয় ছিলো না। তবে সে পৃথিবীকে একা রেখে যাবে, খাঁচা করে। তার ক্ষতিগ্রস্তদের চেয়ে মমতাময়ী মৃত্যু।

গণহত্যা, ফ্যাসিবাদ ও জাতিসত্ত্বার লেখক ও প্রভাষক আরনেসা বুলজুস্মিক-কুস্তুরা বলেছেন, মঙ্গলবারের ঘটনাবলীর বিষয়ে তার মিশ্র অনুভূতি ছিল, যা দেখেছিলেন জাম্বিয়ার প্রিসাইডিং জজ প্রিসকা মাতিম্বা নিম্বে। তিনি ম্লাদিচ সম্পর্কিত আদালতের বিভিন্ন সিদ্ধান্ত সম্পর্কে ভিন্নমত পোষণ করেছেন। তিনি টুইট করেন- যাবজ্জীবন সাজা,কারাগারে জীবন। তবে তিনি একটি জীবন লাভ করতে পারেন যখন আমাদের হাজার হাজার মানুষ কখনই তা চায় না। আমার মিশ্র অনুভূতি আছে। আসলে এটাই শেষ নয়। যেহেতু এটি সার্ব নৃতাত্ত্বিক-জাতীয়তাবাদীদের আরও বাড়িয়ে তুলবে।

তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই রায়কে ন্যায়বিচারের প্রকাশ হিসাবে স্বাগত জানিয়েছেন। জাতিসংঘের সিদ্ধান্ত স্রেব্রনিৎসাতে যারা মারা গিয়েছিল তাদের স্বজনদের বেদনা দূর করবে না। তবে আমরা আশা করি যে এই সিদ্ধান্তটি বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা এবং এই অঞ্চলে সামাজিক শান্তি ও পুনর্মিলন ঘটাবে। এবং এই জাতীয় অপরাধ রোধে ভূমিকা রাখবে।