ঢাকা, সোমবার, ২৭শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে পারিবারিক কলহের জের ধরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে বৃদ্ধার আত্মহত্যা

পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রীসহ ছেলেমেয়ের কাছে পিটুনী খাওয়ায় মনের দুঃখ সইতে না পেরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে আবু বক্কর সিদ্দিক (৬৭) নামের এক বৃদ্ধ। ঘটনাটি ঘটেছে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার সালন্দর ইউনিয়নের শাহ্পাড়া গ্রামে।

শুক্রবার (১০ সেপ্টেম্বর) সকালে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।

নিহতের ছোট ভাই ইমাম আলী জানান, আমি অন্য একটি গ্রামে থাকি বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে আমার বড় ভাই আবু বক্কর সিদ্দিক মোবাইল ফোনে কেঁদে কেঁদে বলেন, পারিবারিক একটি ঘটনা নিয়ে অনেকদিন থেকে তার সংসারে অশান্তি চলছে এবং কিছুক্ষণ আগে পারিবারিক কলহের জের ধরে তার স্ত্রী আনোয়ারা বেগম, মেয়ে নাসিমা আক্তার, দুই ছেলে হাসান আলী ও রবিউল ইসলাম একজোট হয়ে তাঁর ভাইকে বেধরক ভাবে মারপিট করে দাঁত-মুখ ও একটি হাত ভেঙ্গে দিয়েছে। এই দুঃখ ও লজ্জা তিনি আর সহ্য করতে পারছেন না তার জীবন তিনি শেষ করতে যাচ্ছেন। এই কথা শুনে আমি এবং আমার অপর এক ভাই ফোনেই তার জীবন নাশ না করতে অনেক অনুনয়-বিনয় ও অনুরোধ করে শান্ত করার চেষ্টা চালাই। সকালে ঘুম থেকে উঠে শুনি আমার ভাই আবু বক্কর সিদ্দিক বাড়ির পাশে এক গাছের ডালে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। একথা শুনে আমরা থানায় খবর দেই এবং পুলিশের সহায়তায় লাশ উদ্ধার করে মর্গে নিয়ে যাই। লাশের মায়না তদন্তের পর আমার ভাইয়ের স্ত্রী, ছেলে-মেয়েকে কোথাও খুঁজে পাইনি। তাদের বাসায় গিয়ে দেখি তাদের প্রতিটি ঘরে তালা দেওয়া। এতে ধারণা করা হচ্ছে তারা নিজেদের অপরাধ বুঝতে পেরে পালিয়েছে।

এ ব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তানভিরুল ইসলাম জানান, থানায় অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে এবং লাশের মায়না তদন্ত করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।