ঢাকা, সোমবার, ২৫শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৯ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ঠাকুরগাঁওয়ে ১৩ জন শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার তিনটি স্কুলের মোট ১৩ জন শিক্ষার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়ে আইসোলেশনে আছে। তারা সবাই ঠাকুরগাঁও সরকারি বালিকা পরিবারের এতিম শিশু। বালিকা শিশু পরিবারে মোট ৬৫ জন এতিম শিশু আছে। তাদের সরকারি খরচে লালন পালন করা হয়। তারা আশপাশের বিভিন্ন স্কুলে পড়াশোনা করে।

করোনায় আক্রান্ত ১৩ জনের মধ্যে বাহাদুরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ জন, সোনালি শৈশব বিদ্যানিকেতনে ৩ জন এবং হাজিপাড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫ জন ছাত্রী পড়ালেখা করে। তবে বাহাদুরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪র্থ ও পঞ্চম শ্রেণির পাঠদান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তবে অন্য দুটি প্রতিষ্ঠানের ক্লাস বন্ধ করা হয়নি।

অভিভাবক বলেছেন, সবকিছুই খোলা। আর স্কুল কলেজ খোলা থাকলে ছাত্র-ছাত্রীদের মানুসিক চাপ হবে না। আর স্কুল বন্ধ থাকলে ছেলে-মেয়ে কোথায় যায় কার সাথে ঘুরে বেড়ায় তা বোঝা যায় না। আমরা গরিব অভিভাবক ছেলে-মেয়েদের প্রতিষ্ঠিত করতে চাই কিন্তু স্কুল বন্ধ করে দিলে সেটা সম্ভব হবে না। স্কুল খোলা থাকলে তাদের জন্য ভালো বলে জানান তারা।

বাহাদুরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা ফারহানা পারভীন সম্পা জানান, বুধবারে আমাদের বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ২ জন ও পঞ্চম শ্রেণির ৩ জন ছাত্রী করোনায় আক্রান্ত হয়। উর্দ্ধতন কর্মকর্তার পরামর্শ মতে বিদ্যালয়ের ৪র্থ ও পঞ্চম শ্রেণির পাঠদান বন্ধ রাখা হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সরকারি বালিকা শিশু পরিবারের উপতত্বাবধায়ক রিক্তা বানু বলেন, ১৬ সেপ্টেম্বর দু’একজন শিশু জ্বরে আক্রান্ত হয়। এরপর আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকলে ২০ সেপ্টেম্বর তাদের কোভিড পরীক্ষার ব্যবস্থা করি। তিনদিনে ২৫ জনের পরীক্ষার করার পর ২৩ সেপ্টেম্বর ১৩ জনের করোনা পজিটিভ আসে। তারা সবাই শিশু পরিবারে আইসোলেশনে আছে। কারো কোন জটিলতা নেই। ১৬ সেপ্টেম্বরের পর থেকে কাউকে স্কুলে পাঠানো হয়নি।