বকেয়া পরিশোধ না করলে নেটওয়ার্ক বন্ধ ও লাইসেন্স স্থগিত

বাড়ছে গ্রামীণফোনের কল ও আন্ত সংযোগ চার্জ

বুধবার, ০১ মে ২০১৯ | ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ | 86 বার

বাড়ছে গ্রামীণফোনের কল ও আন্ত সংযোগ চার্জ

গ্রামীণফোনের কাছে বিটিআরসির পাওনা প্রায় ১৩ হাজার কোটি টাকা আদায়ে কঠোর হচ্ছে বিটিআরসি। পাওনা আদায়ে আইন অনুযায়ী যা যা করা দরকার সবই করা হবে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান জহিরুল হক। তিনি বলেন, এ বিষয়ে মাফ করার কোনো ক্ষমতা বিটিআরসির নেই। টাকা আদায়ে প্রয়োজনে গ্রামীণফোনের নেটওয়ার্ক বন্ধ ও লাইসেন্স স্থগিত করা হবে। গ্রামীণফোনকে টাকা পরিশোধের জন্য ১০ দিনের সময় দেওয়া হয়েছিল। সে সময় পার হয়ে গেছে। বিটিআরসির আগামী সভায় এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এদিকে গ্রামীণফোনের গ্রহকদের জন্যও দুঃসংবাদ। তাৎকার্যপূর্ণ বাজার ক্ষমতাধর বা এসএমপির বিধিনিষেধের আওতায় গ্রামীণফোনের সর্বনিম্ন কলরেট ৫ পয়সা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়েছে। এর ফলে অন্য মোবাইল ফোন অপারেটরদের কলচার্জ সর্বনিম্ন ৪৫ পয়সা থাকলেও গ্রামীণফোনের কলরেট হবে সর্বনিম্ন ৫০ পয়সা। কলরেট বাড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে গ্রামীণফোনের ইন্টারকানেকশন বা আন্তসংযোগ চার্জও বাড়ানো হয়েছে। সব মিলিয়ে বাজারে গ্রামীণফোনের আধিপত্য কমাতে এর গ্রাহকদের অন্য অপারেটরের সেবা নেওয়ার পথ প্রশস্ত করল বিটিআরসি।

গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিটিআরসি তাদের এই সিদ্ধান্তের বিষয়টি গ্রামীণফোনকে কয়েক দিনের মধ্যেই জানিয়ে দেবে।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান জহুরুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রসঙ্গত, এসএমপি ঘোষণার পর গত ১৮ ফেব্রুয়ারি গ্রামীণফোনের ওপর বিভিন্ন বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়।

কলরেট বৃদ্ধির বিষয়টি জানতে যোগাযোগ করা হলে গ্রামীণফোনের হেড অব এক্সটার্নাল কমিউনিকেশন্স সৈয়দ তালাত কামাল কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘এসএমপি বিষয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থার পক্ষ থেকে আমাদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক কোনো যোগাযোগ হয়নি। আমরা এ বিষয়ে প্রযোজ্য আইন যেমন : প্রতিযোগিতা আইন ও আন্তর্জাতিকভাবে সর্বোত্তম অনুশীলনের সঙ্গে সংগতিপূর্ণ প্রতিযোগিতামূলক কর্মকাঠামোর পক্ষে। যেখানে আধিপত্য কিংবা যৌথ আধিপত্যের অপব্যবহারের কোনো প্রমাণ নেই সেখানে এমন নির্দেশনার মাধ্যমে কোনো প্রতিষ্ঠানের প্রবৃদ্ধি, উদ্ভাবন ও বিনিয়োগের সক্ষমতা সীমাবদ্ধ করে দেওয়া উচিত নয়।’

এর আগে গত সোমবার বিটিআরসির কার্যালয়ে টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক বাংলাদেশের (টিআরএনবি) নতুন কমিটির সঙ্গে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিটিআরসির চেয়ারম্যান গ্রামীণফোনের কাছে পাওনা আদায়ে তাদের কঠোর অবস্থানের কথা জানান।

প্রসঙ্গত, অডিট ফার্মের হিসাব অনুযায়ী গ্রামীণফোনের কাছে সুদে-আসলে মোট পাওনা দাঁড়িয়েছে ১২ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৪ লাখ ৭৬ হাজার ১৩৫ টাকা।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান বলেন, অডিট অনুযায়ী গ্রামীণফোনের কাছে প্রায় এক যুগ ধরে এই টাকা পাওনা হয়েছে। প্রতিদিনই ১৫ শতাংশ হারে লেট ফিসহ এই পাওনা বাড়ছে। তারা বারবার কোর্টে গিয়ে সময় নিয়েছে। কোর্ট সময় দিলে মানতে হবে। তবে টাকা তাদের দিতেই হবে। টাকা আদায় করার জন্য যা যা করার বিটিআরসি তা করবে।

এক মাসের শিশুকে রাস্তায় ফেলে গেলেন মা, কোলে তুলে নিলেন ডিসি

Design & Developed by: Ifad Technology